ভিন্ন ধাঁচের পাঁচটি কারটিয়্যের ঘড়ি – ঘড়ি


0

ব্র্যান্ড ভ্যাল্যুর
সাথে ঐতিহ্যের দিক বিবেচনা করলে কারটিয়্যের সবসময় প্রথমেই থাকবে। পৃথিবীর প্রথম
হাত ঘড়ি তৈরির কৃতিত্ব এই ঘড়িরই। লুই কারটিয়্যের ঘড়িটির জনক এবং প্রথম ঘড়িটির সাথে
তার জুড়ে আছে আরেকজনের নাম সেটি হলো তার বন্ধু আলবেরতো সান্তোস। আজকে আমরা জানব
এমন পাঁচটি কারটিয়্যের ঘড়ি যা অন্যসব ঘড়ি থেকে ভিন্ন।

১. রোবাস্ট সান্তোস

রোবাস্ট সান্তোসের ঘড়ি; Source: watches-of-switzerland.co.uk

কারটিয়্যেরের এই ঘড়িটি
ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে। এটি পুরুষদের জন্য তৈরি করা প্রথম হাত ঘড়ি। লুই
কারটিয়্যের ঘড়িটি তৈরি করেছিলেন। আলবেরতো সান্তোস যিনি পেশায় ছিলেন একজন বিমান
চালক, তার বন্ধু ছিলেন লুই কারটিয়্যের। এই লুই কারটিয়্যেরই তার প্রিয় বন্ধুর জন্য
১৯০৪ সালে রবাস্ট সান্তোস ঘড়িটি তৈরি করেন। এটি বিমান চলাকালীন সময় নির্ণয়ের জন্যে
তৈরি করা হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে এই ঘড়ির মাধ্যমে হাত ঘড়ির ব্যবহার অনেক বেড়ে যায় যা
সময় নির্ণয় পদ্ধতি, ব্যবসা ক্ষেত্রে, শিল্পে, ফ্যাশনে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটায়।

এই ঘড়ি নির্মাণের আগেও ঘড়ি তৈরি করা হতো, তবে সেগুলো ছিলো হাতের ব্রেসলেট যা শুধু নারীর অলঙ্কার হিসেবেই ব্যবহৃত হত। হাতঘড়ির আগে পকেট ঘড়ির প্রচলন ছিল। আলবেরতো সান্তোস বিমানে চালানো অবস্থায় সময় দেখতে অসুবিধা হত। কারন তার বার বার পকেট ঘড়ি বের করে দেখতে হতো। তাই তিনিই প্রস্তাব করেন, এমন এক ঘড়ি যেন তার সময় দেখতে সুবিধা হয়।

এই অনুপ্রেরণার ফলেই পৃথিবীতে আসে রোবাস্ট সান্তোস। ঘড়ির বেল্টটি চামড়ার তৈরি যা সহজে নষ্ট হবার নয়। প্রায় বর্গাকার এর ডায়াল। ঐ সময়ে ঘড়িটি ছিল সহজে বহনযোগ্য একটি ঘড়ি যার মাধ্যমে ইতিহাসে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটে। ঘড়িটির পিছনের ইতিহাসই এটিকে অন্যসব ঘড়ি থেকে আলাদা ও মূল্যবান করে তোলে সেটা কারটিয়্যেরেরই অপর ঘড়িগুলোর সাপেক্ষে হোক অথবা অন্য যেকোনো ব্র্যান্ডের সাথেই তুলনা করা হোক না কেন।

২. ড্রাইভ দে কারটিয়্যের
এক্সট্রা ফ্ল্যাট

ড্রাইভ দে কারটিয়্যের; Source: hodinkee.com

২০১৬ সালে ড্রাইভ দে কারটিয়্যের
বাজারে আসে। এর চমৎকার নকশা ও আকারর সবাইকে মুগ্ধ করে দেয়। কারটিয়্যেরের পরিচয়ই
হলো তার সুন্দর নকশা ও ডায়ালের আকারের জন্য। ড্রাইভ দে কারটিয়্যের অ এর বাইরে নয়। চিকন বেল্ট এর মধ্যে
প্রায় বর্গাকার তবে চার কোণে হালকা বাঁকানো। ২০১৬ সালের ঘড়িটি যদিও বেশ সারা ফেলেছিল তারপরেও এটি নিয়ে
সবার মাঝেই কিছু অসন্তোষও ছিল।

এর পিছনের কারন হলো- ঘড়িটির
ডায়াল বড় ও মোটা। পরিমাপ হল, ৪১ মিলিমিটার ও মোটা ১১.২৫ মিলিমিটার। মোনোক্রোম ঘড়ি হিসেবে
ব্যবহার করতে চাইলে সব ক্ষেত্রেই মানুষ একটু কম মোটাই পছন্দ করে। এই মোনোক্রোমগুলো
যেকোনো পোশাকের সাথে খুব সহজেই মানিয়ে নিয়ে যায়।

তবে এই অসন্তোষ কারটিয়্যের
বেশিদিন টিকতে দেয়নি। ২০১৭ সালেই কারটিয়্যের আরেকটি ঘড়ি বাজারে ছাড়ে যেটি হলো ড্রাইভ
দে কারটিয়্যের এক্সট্রা ফ্ল্যাট। নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে ঘড়িটি ঠিক কোথায় পরিবর্তন এনেছে। বিগত মডেলের সমস্যা
ছিল এর আকার নিয়ে তাই এবার কারটিয়্যের ৩৯ মিলিমিটার ৬.৬ মিলিমিটার আকারের ঘড়ি তৈরি
করেছে। এটি মোনোক্রোম হিসেবে আপনাকে সব ধরনের সুবিধা ও সন্তুষ্টি দিতে পারবে।

৩. ব্যালো ব্লু

ব্যালো ব্লু কারটিয়্যের,
কারটিয়্যেরের অন্যতম সেরা ঘড়ি বললে ভুল হবে না। ১৯৬৪ সালে কোম্পানিটি কারটিয়্যের
পরিবারের থেকে ক্রয় করার পরও এর নকশায় কোনো প্রকারের কম লক্ষ্য করা যায়নি। ২০১০ এর
ভেতরই কারটিয়্যের তাদের সেরা ১০ টি মডেল প্রকাশ করে। এর মধ্যেই যায়গা করে নেয় এই
ব্যালো ব্লু দে কারটিয়্যের। এটি ২০০৭ সালে বাজারে আত্মপ্রকাশ করে। আর এর পর থেকেই
এটি বেশ সারা ফেলে। এটি এখন পর্যন্ত কারটিয়্যের সব থেকে বেশি বিক্রয় হওয়া ঘড়িগুলোর
মধ্যে অন্যতম।

Source: Mapping & Webb

এর সুন্দর নকশা ও
মানানসই আকৃতির ডায়াল সবাইকে মুগ্ধ করতে বাধ্য। অন্যান্য কারটিয়্যেরের ডায়াল
বর্গাকার ধরনের হলেও ব্যালো ব্লু হলো গোলাকার ডায়াল। এর কেইস টি ৪১ মিলিমিটারের আর
ডায়ালটি ১১.৯৯ মিলিমিটার মোটা। ঘড়ির চেইন স্টেইনলেস স্টিলের তৈরি। এটি নারী ও
পুরুষের উভয়েরই জন্যে তৈরি করা হয়েছে। হলদে সোনালী ও গোলাপি সোনালী বর্ণের মধ্যে
পাওয়া যায়। তাছাড়া সম্পূর্ণ স্টিল বর্ণের মধ্যেও বাজারে বর্তমান আছে। এর দাম মডেল
ও বর্ণ ভেদে ২৮ হাজার মার্কিন ডলার কিংবা এর থেকেও বেশি হতে পারে।

৪. ড্রাইভ দে কারটিয়্যের
মুন ফেইজ

২০১৬ সালে কারটিয়্যেরের
ড্রাইভ সিরিজ উদ্ভদন করা হয়। ঘড়িটি বাজারে বেশ সারাও ফেলে তবে এর মাঝেও কিছু
পরিবর্তন প্রয়োজন ছিল। আর এই পরিবর্তনটি আনা হয় এর পরবর্তী মডেল ২০১৭ তে যেখানে
ডায়ালের আকৃতি আগের থেকে কমিয়ে আনা হয়।  তবে এ ঘড়ির ক্ষেত্রেও কারটিয়্যের ভক্তরা কিছু
আপত্তি করেছিলেন। সেটি ছিল ঘড়িটির মূল্য ও এর অতি সরল নকশা। তবে নকশা যত সহজ সরল
হবে ঘড়ি হবে তত সুন্দর ও চমৎকার এটিই প্রচলিত ধারনা। তবে সব ধরনের অভিযোগ মিটিয়ে
পরে বাজারে আসে ড্রাইভ সিরিজের আরেকটি ঘড়ি সেটি হলো, ড্রাইভ দে কারটিয়্যের মুন
ফেইজ। অন্যান্য সময়-তারিখ ও দ্বৈত সময় ব্যাপারটি একটি ঘড়ির ডায়ালে প্রকাশ কর্তে
ঝামেলা পোহাতে হয়। বিশেষ করে ঘড়ির কাঁটার ৩ এর দিকে তারিখ থাকলে অনেকের মতে নকশা
হিসেবে এটি তেমন পছন্দনীয় নয়। তবে প্রথমবারের মত এই কারটিয়্যেরটি দ্বৈত সময় ও
সময়-তারিখ বিষয়টি চমৎকারভাবে ঘড়িটিতে ফুটিয়ে তুলতে পেরেছেন।

৫. প্যান্থেয়ার দে
কারটিয়্যের

প্যান্থেয়ার দে কারটিয়্যের; Source: hodinkee.com

প্যান্থেয়ার দে
কারটিয়্যের চেইনের ঘড়িগুলোর মধ্যে সেরা। এর চেইন সোনালি, স্টিল, হলদে সোনালী
বর্ণের হয়ে থাকে। কারটিয়্যের তার পরিচিতি এই ঘড়িটির মাধ্যমেও ধরে রেখেছে। এর ডায়াল
বর্গাকার তবে লম্বাটে। অর্থাৎ ঘড়ির এগার, বার ও এক টার কাঁটার যায়গাটুকু সংকীর্ণ
আর এক থেকে পাঁচ পর্যন্ত লম্বাটে ধরনেরে। চেইনের অংশটুকু দেখলে মনে হবে গমের মত ,
একটির পর একটি ক্ষুদ্র অংশ পাদশাপাশি ও উপর নিচ করে বসানো।

তথ্যসূত্র

১. https://monochrome-watches.com/drive-de-cartier-extra-flat-sihh-2017-review-price/

২.https://www.jomashop.com/cartier-ballon-bleu w69005z2.html?pt_source=googleads&pt_medium=cpc&pt_campaign=(ROI)+DSA&gclid=CjwKCAjwqNnqBRATEiwAkHm2BPWBO0joRjUSD-EET5Pb8npKp4nKlwP8DaN1qufZhWH1VXQ4Orm6ABoCCX8QAvD_BwE  

৩.  https://monochrome-watches.com/drive-de-cartier-moon-phases-sihh-2017-review-price/

৪. https://www.chronext.com/guide/cartier/santos  

ফিচার ছবি- Fratello Watches


Like it? Share with your friends!

0
Sohag Alom

0 Comments

Your email address will not be published. Required fields are marked *